1. a.hossainmcj@gmail.com : Akter Hossain : Akter Hossain
  2. Gram.bangla@yahoo.com : bigboss : Tanjim
  3. billal.mcj1@gmail.com : Billal Hosen : Billal Hosen
  4. mdkutubcou@gmail.com : গ্রাম বাংলা : গ্রাম বাংলা ডেস্ক
  5. sanymcj@gmail.com : GramBanglaBD : Gram Bangla
  6. muhaimin.mcj@yahoo.com : Gram Bangla : Muhaimin Noman
  7. mohiuddinrasel1922@gmail.com : Mohi Uddin Rasel : Mohi Uddin Rasel
  8. rayhan.mcj@gmail.com : Abu Bakar Rayhan : Abu Bakar Rayhan
অমিত শাহ করোনা আক্রান্ত, হাসপাতালে ভর্তি - দৈনিক গ্রাম বাংলা    
শনিবার, ০৮ অগাস্ট ২০২০, ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন

অমিত শাহ করোনা আক্রান্ত, হাসপাতালে ভর্তি

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২ আগস্ট, ২০২০
  • ১৩৩ বার পঠিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। দেশটিতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ লাখের বেশি মানুষ।

করোনা শনাক্ত হওয়ার পর রোববার (০২ আগস্ট) বিকেলে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনি।

দিল্লির পার্শ্ববর্তী হারিয়ানার গুরুগ্রামের মেদান্তা হাসপাতালে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন বলেও জানা গেছে।

এর আগে এক টুইটে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জানান, ‘তার শারীরিক অবস্থা ভালো। চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন।’

ভারতে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে অকল্পনীয় হারে। বর্তমানে আক্রান্ত ছাড়িয়েছে ১৭ লাখ। গেল দু’দিনে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ মানুষ।

গেল কয়েকদিন আগে মন্ত্রিসভায় বৈঠক করেন ৫৫ বছর বয়সী অমিত শাহ। সূত্র জানায়, যারা অমিত শাহের সংস্পর্শে এসেছেন তাদের করোনা পরীক্ষা করার প্রক্রিয়া চলছে। যারাই তার সংস্পর্শে এসেছেন তাদের সেলফ আইসোলেশনে পাঠানো হবে।’

অমিত শাহ টুইটে বলেন, প্রাথমিক উপসর্গ দেখা যাওয়ার পরই আমি নমুনা পরীক্ষা করাই। পরীক্ষার ফল করোনা পজেটিভ এসেছে। আমর স্বাস্থ্য ভালো আছে। তারপরও চিকিৎসকের পরামর্শে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছি।

আমি অনুরোধ করছি, গেল কয়েকদিনে আমার সংস্পর্শে যারা এসেছেন, দয়া করে সবাই আইসোলেশনে থাকুক। নিজেদের নমুনা পরীক্ষা নিশ্চিত করুন।’

রোববার সকালে করোনায় মারা গেছেন উত্তর প্রদেশ সরকারের মন্ত্রী কমল রানী ভারুন। ৬২ বছর বয়সে ওই নারী লক্ষ্ণৌ সঞ্জয় গান্ধী পোস্ট গ্রাজুয়েট ইনস্টিটিউট মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

গেলো সপ্তাহে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিভরাজ সিং করোনায় আক্রান্ত হন। নয়দিন ধরে তিনি হাসপাতালে ভর্তি। রোববার সকালে এক টুইট বার্তায়, নিজের শারীরিক অবস্থা ভালো বলে জানিয়েছেন তিনি।

তামিল নাড়ুর গভর্নর বানওয়ারিলাল পুরোহিতও করোনায় আক্রান্ত। চেন্নাই কাউভেরি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তিনি। তার শরীরে করোনার কোনো উপসর্গ ছিল না।

সন্দেহভাজন হিসেবে পরীক্ষার পর তার দেহে করোনা ভাইরাস ধরা পরে। তার শারীরিক অবস্থা বর্তমানে স্থিতিশীল বলে জানায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, গেলো ২৪ ঘণ্টায় ৫৪ হাজার ৭শ’ ৩৫ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ লাখ ৫০ হাজার ৭শ’ ২৩ জনে।

বিধিনিষেধ শিথিল করে আনলক-থ্রি জারির পরই দেশটিতে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যায়। যদিও সরকার এখনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সিনেমা হল, পানশালা, ব্যায়ামাগার খুলেনি। রাজ্য সরকারগুলো করোনা মোকাবিলায় বিভিন্ন পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করছে।

১৮৫ দিনে ভারতে করোনায় আক্রান্ত ছাড়ায় ১৭ লাখ। জানুয়ারিতে কেরালায় প্রথম করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়। প্রথম ১শ’ ১০ দিনে আক্রান্ত হয় ১ লাখ। জুলাইতে আক্রান্ত হয়েছে মোট আক্রান্তের ৬০ শতাংশ।  মোট মারা যাওয়াদের অর্ধেক মারা গেছেন জুলাই মাসেই।

আরও পড়ুন

জীবন বাঁচানোর যুদ্ধে ওরা ১১ জন

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রথম সিনেমা ‘ওরা ১১ জন’-এর কথা কারো অজানা নয়। চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিত সিনেমাটিতে ১১ জন কলাকুশলী
রণাঙ্গনের সম্মুখসমরে জয়ী হয়েই ছিনিয়ে এনেছিলেন এদেশের স্বাধীনতা। বর্তমান তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি, তবে ইতিহাস জেনে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শকে বুকে ধারণ করতে শিখেছে।

ওরা ১১ জন সিমেনায় যেভাবে সম্মুখসমরে বিজয় নিয়ে এসেছে বীর যোদ্ধারা, তেমন আজকের প্রজন্ম কাজ করে যাচ্ছে দেশের জন্য, দেশের মানুষের তরে। করোনাভাইরাসের কারণে চারমাসের অধিক সময় বন্ধ দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বন্ধের এ সময়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ক্যান্সার আক্রান্ত শিক্ষার্থীর জীবন বাঁচাতে যুদ্ধে নেমেছে বিভাগটির একদল শিক্ষার্থী।

১১ জন শিক্ষার্থী করোনার সময়ে ঘরে বসে রচনা করেছেন কাব্যগ্রন্থ। যার আয়ের টাকা ব্যয় হবে ফুসফুস ক্যান্সারে তানিন মেহেদির আক্রান্ত জীবন বাঁচাতে। এই ১১ জন শিক্ষার্থী যেন সিনেমাটির মত করে আবার জীবন বাঁচানোর যুদ্ধে নেমেছেন।

গণযোগাযোগ ও সাংবাতিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী সোহাগ মনির পরিকল্পনাও সম্পাদনায় তানিনের চিকিৎসার জন্য কাব্য গ্রন্থ প্রকাশের উদ্যোগ নেয়া হয়। বিভাগের আরো ১০ জন শিক্ষার্থী জান্নাতুন নিশা, নুহাশ রহমান, ফাতেমা রহিম, রফিক উদ্দীন, সানজিদা আক্তার অপর্ণা, ইমতিয়াজ হাসান রিফাত, ওয়াফা আক্তার রিমু,চৌধুরী মাসাবিহ, হুমায়রা কবির এবং আঞ্জুমান শীমু এর সমন্বয়ে কাজ শুরু হয় কাব্যগ্রন্থের।

শিক্ষার্থীদের নিজেদের রচিত কবিতা দিয়ে ১ মাস দিনরাত পরিশ্রম করে সম্প্রতি তারুণ্য প্রকাশনী থেকে ই-বুক আকারে প্রকাশিত হয়েছে ‘ভাঙ্গা গড়ার শব্দ’ নামের বইটি।

‘আমি কখনো কবিতা লিখিনি। জানা ছিলোনা কবিতা লেখার মতো গুণ আমার থাকতে পারে। জীবন বাচাঁতে কবিতা কখনো শামিল হতে পারে তাও ভাবনায় ছিলোনা।’ এভাবেই বলছিলেন বইটির একজন লেখক সানজিদা আক্তার অপর্ণা। তিনি বলেন, আজ আমাদের সম্মিলিত লেখা কাব্যগ্রন্থ নিয়ে তানিনের জীবন বাচাঁনোর যুদ্ধে শামিল হয়েছি। নিজের লেখা কবিতা কারো জীবন বাচাঁতে ভূমিকা রাখবে এটাই আমার জন্য আনন্দের।

অপর লেখক ইমতিয়াজ হাসান রিফাত বলেন,”আমাদের প্রথম যৌথ কাব্যগ্রন্থ ‘ভাঙা গড়ার শব্দ’। আমরা ক্যান্সার আক্রান্ত তানিন ভাইকে উৎসর্গ করেছি। আমাদের কলমের জোরে আমরা একজন ছাত্র, একজন মানুষ, একজন ভাই বা একটি মায়ের সন্তানকে বাঁচাতে সাহায্য করতে পারছি এটা আমাদের মত তরুণ কবিদের জন্য অনেক বড় পাওয়া।”

গ্রন্থের সমন্বয়ক ও সম্পাদক সোহাগ মনি বলেন, ‘ক্যান্সার আক্রান্ত তানিনের পাশে দাঁড়ানোই আমাদের উদ্দেশ্য। বইটির শুভেচ্ছা মূল্য আমরা তুলে দেবো তানিনের হাতে। আমরা যদি ১টাকাও তানিনের হাতে দিতে পারি তাহলে আমাদের চেষ্টা সফল হবে বলে মনে করি।’

সোহাগ আরও জানান, গ্রন্থটির শুভেচ্ছা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে সর্বনিন্ম ৫০ টাকা। তবে তানিনের কথা ভেবে যদি কেউ মূল্য বেশি দেয় দিতে পারবে।

বিভাগের শিক্ষক এম. আনিছুল ইসলাম শিক্ষার্থীদের প্রশংসা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন ,’মানুষ বাঁচানোর লড়াটাই শ্রেষ্ঠ কবিতা, কবিতারা হারে না,শিক্ষার্থীদের এমন উদ্যোগে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ি।’

শিক্ষার্থীদের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাতিকতা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোঃ বেলাল হুসাইন বলেন,’করোনার বন্ধে আমাদের শিক্ষার্থীরা জীবন বাঁচানোর যুদ্ধে নেমেছে। এ আমাদের বিভাগের জন্য আনন্দের ও গর্বের। আশা রাখি, শিক্ষার্থীরা এ যুদ্ধে জয়ী হবে। বিভাগ থেকে সবসময় সবরকম সহায়তা করা হবে।’

বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী তানিন মেহেদী দীর্ঘদিন যাবৎ ক্যান্সারে ভুগছিলেন। সম্প্রতি তানিন ফুসফুস ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে কেমো থেরাপি নিচ্ছেন।

তানিনের চিকিৎসার জন্য প্রায় তিন লাখ টাকার প্রয়োজন। এ টাকা সংগ্রহ করতে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ১১ জন শিক্ষার্থীর রচিত কাব্যগ্রন্থটি উৎসর্গ করা হয়েছে।

বইটি কিনতে বা তানিনের পাশে দাঁড়াতে সাহায্য পাঠাতে করতে পারেন আরাফাত:০১৭৬৫৫৬৬৬১৬২(রকেট), সোহাগ:০১৬২১৮৯২৫৭৪(বিকাশ)।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..