1. a.hossainmcj@gmail.com : Akter Hossain : Akter Hossain
  2. Gram.bangla@yahoo.com : bigboss : Tanjim
  3. billal.mcj1@gmail.com : Billal Hosen : Billal Hosen
  4. mdkutubcou@gmail.com : গ্রাম বাংলা : গ্রাম বাংলা ডেস্ক
  5. sanymcj@gmail.com : GramBanglaBD : Gram Bangla
  6. muhaimin.mcj@yahoo.com : Gram Bangla : Muhaimin Noman
  7. mohiuddinrasel1922@gmail.com : Mohi Uddin Rasel : Mohi Uddin Rasel
  8. rayhan.mcj@gmail.com : Abu Bakar Rayhan : Abu Bakar Rayhan
চতুর্থ দিনেও ভারতীয় পণ্য ঢুকতে দেয়নি বাংলাদেশ - দৈনিক গ্রাম বাংলা    
বুধবার, ১২ অগাস্ট ২০২০, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন

চতুর্থ দিনেও ভারতীয় পণ্য ঢুকতে দেয়নি বাংলাদেশ

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ জুলাই, ২০২০
  • ৪৩৪ বার পঠিত

গ্রামবাংলা ডেস্ক:

বাংলাদেশ থেকে পণ্য রফতানি বন্ধের প্রতিবাদে চতুর্থ দিনের মতো ভারত থেকে পণ্য আমদানি বন্ধ রেখেছেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা। এতে বেনাপোল বন্দরের দুই পাড়ে আটকা পড়েছে এক হাজারের বেশি পণ্যবাহী ট্রাক।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, গত তিন মাসের বেশি সময় ধরে বাংলাদেশি পণ্য রফতানি বন্ধ রয়েছে ভারতে। করোনার কারণে দীর্ঘ বন্ধের পর ৭ জুন বিধি মেনে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের সঙ্গে আমদানি বাণিজ্য শুরু হয়।

কিন্তু নানা টালবাহানার মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে পণ্য রফতানি চালু করেনি ভারত। দীর্ঘদিন শত শত ট্রাক বন্দরে আটকে থাকায় নষ্ট হচ্ছে পণ্যের গুণগতমান।

দেশীয় ব্যবসায়ীরা বলছেন, বারবার দেনদরবার করেও চালু করা যায়নি রপ্তানি কার্যক্রম। যার ফলে একপ্রকার বাধ্য হয়েই বন্ধ করে দিতে হয়েছে ভারত থেকে পণ্য আমদানি।

 

আরো পড়ুন:

নামাযে প্রথম কাতারে অফিসারদের বসতে মসজিদ কমিটির নোটিশ

‘প্রথম কাতারে অফিসাররা বসবেন, তাদের জায়গায় নামাজ শুরু হওয়া পর্যন্ত অন্য কেউ বসতে পারবেন না। নামাজ দাড়িয়ে গেলে যদি তাদের জায়গা খালি থাকে তাহলে সাধারণ মানুষ তা পূরণ করে দাড়াবে’। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত একটি জরুরি নোটিশ দিয়েছে টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদ।

মসজিদ কর্তৃপক্ষের নোটিশে বলা হয়, সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, বাসাইল উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক নামাজের জায়গা চিহ্নিত করা হয়েছে। পাঁচ ওয়াক্ত এবং জুমার নামাজ চিহ্নিত জায়গার বাইরে পড়া যাবে না এবং জামাত দাঁড়ানোর পূর্ব পর্যন্ত অফিসারগণের সম্মানে সামনের কাতারে না দাঁড়ানোর জন্য অনুরোধ করা হলো। জামাত দাঁড়ানোর সময় সামনের চিহ্নিত খালি জায়গা পূরণ করে দাঁড়াবেন। মসজিদের বাইরে/রাস্তায় মসজিদের কার্পেট বিছানো হবে না, পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ কার্যকর থাকবে। নোটিশটি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে মসজিদে প্রবেশের দরজাসহ বিভিন্ন জায়গায় লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে।

পরে বিষয়টি নিয়ে এলাকায় সমালোচনা সৃষ্টি হলে নোটিশ তুলে নেওয়া হয়। তবে কেন এই নোটিশ টানানো হয়েছিল, তা নিয়ে মসজিদ কমিটি ও ইমাম পরস্পরকে দায়ী করছেন। এদিকে, নোটিশটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তাতেও ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়।

মসজিদটির ইমাম হাফেজ রেজাউল করিম বলেন, মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদকের নির্দেশে গত বৃহস্পতিবার এ নোটিশটি দেওয়া হয়েছে। পরে শুক্রবার জুমার নামাজ শুরুর আগে নোটিশটি পড়ে মুসল্লিদেরকে জানিয়ে দেওয়া হয়। সিদ্ধান্তটা পুরোপুরি মসজিদ কমিটির। আমি শুধু তাদের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেছি।

জানা গেছে, টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামছুন নাহার স্বপ্না ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার আল-আমিন।

মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আল আমিন বলেন, এটা মসজিদের ইমামের ভুলের কারণে হয়েছে। তাকে যেভাবে লিখতে বলা হয়েছে তিনি সেভাবে লেখেননি। মসজিদে সাধারণ মানুষের সচেতনতার জন্য এটি দেওয়া হয়েছে। তবে সামনের কাতারে অফিসাররা বসবেন এটা আমি তাকে লিখতে বলিনি।

মসজিদের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না বলেন, এ ধরনের নোটিশের ব্যাপারে আমার জানা ছিল না। আমি যখন জানতে পেরেছি তখনই নোটিশটি ‍তুলে নেওয়ার জন্য বলেছি। আমাকে না জানিয়ে কীভাবে নোটিশ দেওয়া হয়েছে এ সম্পর্কে জানতে জরুরি মিটিং ডেকেছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..