1. a.hossainmcj@gmail.com : Akter Hossain : Akter Hossain
  2. Gram.bangla@yahoo.com : bigboss : Tanjim
  3. billal.mcj1@gmail.com : Billal Hosen : Billal Hosen
  4. mdkutubcou@gmail.com : গ্রাম বাংলা : গ্রাম বাংলা ডেস্ক
  5. sanymcj@gmail.com : GramBanglaBD : Gram Bangla
  6. muhaimin.mcj@yahoo.com : Gram Bangla : Muhaimin Noman
  7. mohiuddinrasel1922@gmail.com : Mohi Uddin Rasel : Mohi Uddin Rasel
  8. rayhan.mcj@gmail.com : Abu Bakar Rayhan : Abu Bakar Rayhan
পিছিয়ে গেল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ - দৈনিক গ্রাম বাংলা    
শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০, ১১:৩২ অপরাহ্ন

পিছিয়ে গেল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২০ জুলাই, ২০২০
  • ৩৫ বার পঠিত

স্পোর্টস ডেস্ক:

সকল জল্পনার অবসান ঘটিয়ে পিছিয়ে গেল এবছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। আজ সোমবার আইসিসির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। চলতি বছরের অক্টোবর-নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় হওয়ার কথা ছিল টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। কিন্তু করোনাভাইরাসের জন্য উদ্ভুত পরিস্থিতিতে তা শেষ পর্যন্ত পিছিয়েই গেল। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াই এই টুর্নামেন্ট আয়োজনে অস্বীকৃতি জানানোয় এই স্থগিতাদেশ অনুমিতই ছিল।

আজকের সভায় করোনা পরিস্থিতিতে স্থগিত হয়ে যাওয়া বিশ্বকাপের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আইসিসির বড় ইভেন্টগুলোর সূচি নতুন করে ঠিক করা হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এ বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটা হবে আগামী বছর অক্টোবর-নভেম্বরে। ফাইনালের সম্ভাব্য তারিখ ২০২১ সালের ১৪ নভেম্বর। এরপর পরের বছর একই সময় ভারতে অনুষ্ঠিত হবে আরও একটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, যেটির ফাইনাল হতে পারে ১৩ নভেম্বর।

ভারতে হতে যাওয়া ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফেব্রুয়ারি-মার্চ থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে ওই বছর অক্টোবর নভেম্বরে। ওই টুর্নামেন্টের ফাইনাল হবে ২৬ নভেম্বর। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পেছানোয় সবচেয়ে বড় লাভবান হলো ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। কারণ ওই সময়ে তারা আইপিএল আয়োজন করতে পারবে।

 

আরও পড়ুন

অভাবের কারণে মেয়েদের বাল্য বিয়ের অনুমতি চেয়ে মায়ের আবেদন

গ্রামবাংলা ডেস্ক:

স্বামী ভ্যান চালক। ঠিকমত রোজগারও করতে পারেন না। স্বামীর অতি সামান্য আয়ে সংসার যেন চলছেই না। তার উপর তিন মেয়ের লেখাপাড়ার খরচ ও ভরণপোষণ জোগাড় করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তাই মেয়েদের বিয়ে ছাড়া আর বিকল্প কিছুই চিন্তা করতে পারছে না মা।

তিনি শুনেছেন বাল্য বিয়ে দিলে জেল হবে। তাই বিয়ের অনুমতি নিতে চার মেয়েসহ সোমবার বিকেলে মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উসমান গণির অফিসে হাজির হন এই মা। উপজেলার একটি বালিকা বিদ্যালয়ে বড় মেয়ে ৮ম শ্রেণিতে, মেজ মেয়ে ৭ম শ্রেণিতে, সেজ মেয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ালেখা করে এবং ছোট মেয়ে মায়ের কোলে।

মেয়েদের কাছে তাদের ইচ্ছা জানতে চাইলে সকলেই একবাক্যে বলে, তারা লেখাপড়া শিখে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে চায়।

তাদের মা বলেন, একটু সহযোগিতা পেলে তিনি কখনও মেয়েদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ের কথা চিন্তা করতেন না। লেখাপড়া খরচ, পোশাক, স্কুলের ইউনিফর্ম, প্রাইভেট শিক্ষকের বেতন ইত্যাদি খরচ যোগাড় করা এখন অসম্ভব। তিনি আফসোস করে বলেন এসব বিষয়ে একটু সহযোগিতা পেলে তিনি তার মেয়েদের লেখাপড়া শিখিয়ে অনেক বড় করতেন!

এমন ঘটনার বর্নানা দিয়ে সোমবার বিকেলে মেহেরপুর মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উসমান গণি তার ফেসবুক ওয়ালে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন, স্ট্যাটাসটি নজরে আসলে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয় ঘটনাটি।

মেহেরপুর মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উসমান গণি বলেন, মেয়েদের যেন বাল্য বিয়ে না দেয়া হয় সেই শর্ত সাপেক্ষে মেয়েদের ৮ মাসের লেখাপড়ার যাবতীয় খরচ, পোশাকের খরচ, ইউনিফর্মের খরচ নগদ প্রদান করা হয়েছে ।

শর্তের অংশ হিসেবে তারা তিন বোন আমাকে কথা দিয়েছে- এখন থেকে আরও ভাল করে পড়ালেখা করে জীবনে প্রতিষ্ঠিত হবে। তাদের মা কথা দিয়েছেন- মেয়েরা লেখাপড়া শিখে বড় না হওয়া পর্যন্ত বিয়ের কথা আর চিন্তাই করবেন না।

শর্ত দুটি পূরণ সন্তোষজনক বিবেচিত হলে পরবর্তীতে আরও সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন তিনি।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..